সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৭:৩৪ অপরাহ্ন
নোটিশঃ
“স্বাধীনবাংলা” টেলিভিশন (IP tv) পরিক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে । “ স্বাধীনবাংলা টেলিভিশন” এ দেশের সকল জেলায় প্রতিনিধি নিযুক্ত করা হবে। আগ্রহী প্রার্থীগন সিভি পাঠান এই ঠিকানায়ঃ cv.shadhinbanglatv@gmail.com, Android Apps on Google Play থেকে ডাউনলোড করতে Shadhin Bangla Television লিখে সার্চ করুন ***

নদীতে অসংখ্য মাছ ধরার ঘের, গোমস্তাপুরে জেলেদের অবৈধ ঘেরে মহানন্দা নদীর করুণ দশা

গোমস্তাপুর( চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি:

চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুরে মহানন্দা নদীতে জেলেদের অসংখ্য অবৈধ মাছ ধরার ঘেরে দূষিত হচ্ছে মহানন্দার পানি। এমনিতেই মহানন্দা শুকিয়ে মরা খালে পরিনত হয়েছে। কোন কোন জায়গায় পানি থাকলেও জেলেদের মাছ চাষের ঘেরে বিষাক্ত খাবার দিয়ে পানি নষ্ট করে ফেলছে।

সরজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, উপজেলার বোয়ালিয়া ইউনিয়নের কালুপুর, দূর্গাপুর, আলমপুর ও মকরমপুর এবং চৌডাল ইউনিয়ানের বেশ কিছু জায়গার নদীতে এখন হাঁটু পানিতে হেঁটে যাওয়া যায়। কোথাও কোথাও  পানির দেখা নেই। দীর্ঘ দিন যাবত বৃষ্টির দেখা নেই। ফলে খাল-বিল নদী-নালা শুকিয়ে যাচ্ছে। এইসব এলাকার মহানন্দা নদী বিলীন হতে বসেছে। প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় কিছু অবৈধ জেলেদের কবলে মহানন্দা তীর নদীর গহব্বরে চলে গেছে। মহানন্দা নদীর এইসব এলাকায় অবৈধ জেলেদের শত শত ঘের ( কুমাড় ) রয়েছে। মৎস অধিদপ্তর যেন নির্বিকার।

কালুপুর গ্রামের আফজাল হোসেন জানান, দীর্ঘদিন যাবত নদীতে মাছ ধরার ঘের ( কুমাড়) ফেলে রাখলে নদীর পাড়ের জমি নদীর ¯্রােতের কারণে নদীর তীরে চলে এসেছে। এতে আমদের নিজেস্ব কিছু জমিসহ এলাকাবাসীর  বেশ কিছু জমি নদীতে তলিয়ে গেছে। অপরদিকে কুমাড়ে আটক মাছকে বিষাক্ত খাবার ( ব্রয়লার বিষ্ঠা ) দিচ্ছে। এতে পানি দূষণ হচ্ছে।

মোঃ জালাল উদ্দিন নামে আরো একজন জানান, নদীর পাড়ে আমি দীর্ঘ যাবত বসবাস করে আসছি, স্থানীয়দের ক্ষমতাবলে প্রায় ২০ বছর ধরে এই ঘেরগুলো (কুমার) রেখে  নদীর পাড় নদীর ¯্রােতে নদীর গহব্বরে চলে গেছে। তিনি আরো জানান, এর কারণে আমার একমাত্র বাড়ীটিও জমি কেটে কেটে নদীর ¯্রােতে নিয়ে চলে গেছে। আমরা এই নদীর দূষিত পানিও ব্যবহার করতে পারছি না।এমনকি নদীতে গোসল পর্যন্ত করতে পারছি না।

মহানন্দা নদীর পানি দূষণ , নদীর পাড় বিলীন ও নদীর সৌন্দর্য নষ্ট নিয়ে এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের ক্ষোভ। এলাকাবাসী এ ও অভিযোগ করেন, স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করে অবৈধ জেলেরা এই মহা উৎসব চালাচ্ছে।

এ বিষয়ে গোমস্তাপুর উপজেলার মৎস্য কর্মকর্তা (অতিঃ দায়িত্ব) ড.মোঃ আবু বক্কর ছিদ্দিক জানান, আমি এখানে নতুন  এখনও এসব বিষয়ে কিছু জানি না। তবে বিষয়টি সত্যিই দুঃখজনক এ বিষয়ে তদন্ত করে দোষিদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইননুগ ব্যবস্থা গ্রহন করবো।

স্বাধীনবাংলা

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.


আমাদের ফেসবুক পেইজ