সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৬:১৬ অপরাহ্ন
নোটিশঃ
“স্বাধীনবাংলা” টেলিভিশন (IP tv) পরিক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে । “ স্বাধীনবাংলা টেলিভিশন” এ দেশের সকল জেলায় প্রতিনিধি নিযুক্ত করা হবে। আগ্রহী প্রার্থীগন সিভি পাঠান এই ঠিকানায়ঃ cv.shadhinbanglatv@gmail.com, Android Apps on Google Play থেকে ডাউনলোড করতে Shadhin Bangla Television লিখে সার্চ করুন ***

হোসেনপুরে  লঙ্কার ট্রিপল সেঞ্চুরি, দিশেহারা  নিম্ন আয়ের মানুষ

হোসেনপুরে  লঙ্কার ট্রিপল সেঞ্চুরি, দিশেহারা  নিম্ন আয়ের মানুষ

আশরাফ আহমেদ, হোসেনপুর (কিশোরগঞ্জ ) প্রতিনিধি:

কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরে স্থানীয় হাটবাজারসহ বিভিন্ন স্থানে  সবজিসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম ক্রমাগতভাবে বাড়তে শুরু করছে। বিশেষ করে লঙ্কা বা কাঁচা মরিচের দাম অস্বীকভাবে বৃদ্ধি পেয়ে ট্রিপল সেঞ্চুরি অতিক্রম করেছে।  ফলে সাধারণ ক্রেতা ও নিম্ন আয়ের মানুষেরা চরম  বিপাকে পড়েছেন।

এদিকে নিত্যপ্রয়োজনীয় তেল, ডাল , কাঁচা মরিচ ও সবজির দাম অস্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় পরিবার-পরিজন নিয়ে কষ্টে কাটছে নিম্ন আয়ের মানুষের।  বিশেষ করে নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে বাজার। প্রতি কেজি কাঁচা মরিচের দাম  ৩২০ থেকে ৩৩০ টাকা।

এদিকে, অধিকাংশ সবজির দামই বেড়ে গেছে। দাম বেশি হওয়ায় চাহিদা অনুযায়ী সবজিও কিনতে পারছে না সীমিত আয়ের মানুষেরা। শুধু তা-ই নয়, অধিকাংশ পণ্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় ক্রেতাদের মধ্যে অস্বস্তি দেখা গেছে।

তবে ক্রমেই অস্থিতিশীল হয়ে উঠেছে কাঁচা মরিচের বাজার। হোসেনপুরে মাত্র কয়েকদিনের ব্যবধানে পাইকারি বাজারে কাঁচা মরিচের দাম বেড়েছে। প্রকারভেদে ৮০ টাকার মরিচ বিক্রি হচ্ছে ৩২০ টাকা কেজি দরে। তবে ব্যবসায়ীরা বলছেন, আমদানির প্রভাবে কিছুটা বেড়েছে মরিচের দাম।

বিভিন্ন বাজারে ঘুরে দেখা গেছে, অস্বাভাবিকভাবে বেড়েছে কাঁচা মরিচের দাম। বাজারে খুচরায় ২৫০ গ্রাম কাঁচা মরিচ কিনতে লাগছে ৫০ টাকা। সে হিসাবে কেজি প্রতি দাম পড়ছে ৩০০ টাকা, কোথাও কোথাও ৩২০ টাকাতেও বিক্রি হচ্ছে। সপ্তাহখানেক আগেও ৭০ থেকে ৮০ টাকা কেজি ছিল কাঁচা মরিচ।

গত কয়েক দিন আগে তীব্র গরম ও সম্প্রতি দুই/তিন দিনের বৃষ্টির কারণে বাজারে সরবরাহ কমেছে মরিচের। এ কারণে কাঁচা মরিচের দাম বেড়েছে বলে দাবি করেছেন ব্যবসায়ীরা।

বুধবার (৯ আগস্ট) সকালে উপজেলার বিভিন্ন বাজার ঘুরে জানা যায়, মাত্র তিনদিন আগে সবজি বাজারে কাঁচা মরিচের দাম ছিল ৮০/১০০ টাকা। দু’দিন পর আজ তা পাইকারি বাজারে বিক্রি হচ্ছে ৩০০ টাকা কেজিতে।

প্রয়োজনের তুলনায় বাজারে কাঁচা মরিচের পরিমাণ অনেক কম থাকায় বাধ্য হয়ে চড়া দামে কিনতে হচ্ছে ক্রেতাসাধারণের।

হোসেনপুর বাজারে কাঁচামরিচ কিনতে আসা গৃহবধূ নার্গিস বলেন, প্রতিদিন নিত্য পণ্যের দাম বৃদ্ধি পেয়েই চলেছে। দু’দিন আগে কাঁচা মরিচের কেজি ছিল ৮০ টাকা। আজ কিনতে হচ্ছে ৩২০ টাকা কেজি দরে। আমাদের মতো সাধারণ ক্রেতাদের জন্য খুবই কষ্টকর হয়ে পড়েছে। বাজার নিয়মিত মনিটরিং না হওয়ার কারণেই কিছু অসাধু ব্যবসায়ী ইচ্ছামতো দাম বৃদ্ধি করছে বলে অভিযোন করেন তিনি।

পৌরবাজারের কাঁচা মরিচ বিক্রেতা বাচ্ছু বলেন, ভারত থেকে কাঁচা মরিচ আমদানি না হওয়ার কারণে আড়তগুলোতে বেশি দামে মরিচ বিক্রি করছেন কৃষকরা। আমরা ব্যবসায়ীরা পাইকারি আড়ত থেকে বেশি দামে কিনে বেশি দামে বিক্রি করছি। এসব কাঁচা মরিচ আমরা বিশেষ করে জেলা শহর থেকে কিনে নিয়ে আসি।

তিনি আরো বলেন, বিগত দিনে তীব্র গরম এবং হঠাৎ করে কয়েক দিনের বৃষ্টিতে কাঁচা মরিচের ফুল নষ্ট হয়ে গেছে। তাতে উৎপাদনও অনেক কম হচ্ছে ফলে বাজারে সরবরাহ কমে গেছে। যার কারণে মরিচের দাম বেড়েছে।

 

এসবিএন/ আশরাফ আহমেদ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.


আমাদের ফেসবুক পেইজ